ডিসিসি নির্বাচনে শেষ মুহুর্তে প্রার্থী চমক

ডিসিসি নির্বাচনে শেষ মুহুর্তে প্রার্থী চমক

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ ঢাকা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থীতে আলোচনায় নতুন মোড়! আলোচনায় বাকিদের নাম পেছনে ফেলে দলের হেভিওয়েটদের মেয়র পদে নৌকা প্রতিক বরাদ্দ দিতে চান আওয়ামী লীগের সভাপতি। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় হঠাৎ রাজনীতির বিশেষ মহলে এমন আলোচনা গুরুত্ব পায়। বিশেষ করে ডিসিসি উত্তরের মেয়র হিসেবে আওয়ামী লীগের নবনির্বাচিত প্রেসিডিয়াম সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানকের দলীয় প্রার্থীতার আলোচনা খবর আসে।

 

গতকাল রাত প্রায় আটটার দিকে প্রেসিডিয়াম সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানক ও নব নির্বাচিত যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বাহাউদ্দিন নাসিম আওয়ামী লীগ সভাপতির ধানমন্ডির রাজনৈতিক কার্যালয় থেকে বেরিয়ে যাওয়ার সময় একদল সমর্থকের মুখে পড়েন। নানক- নাসিমের গাড়ি আটকে ৪ থেকে ৫ শ লোকের ও-ই জমায়েতের স্লোগান শুধু জয়বাংলা এবং উত্তর উত্তর বলে শোনা যায়। তাদের মধ্য থেকে কয়েক জনের কাছে নানক-নাসিমকে পদোন্নতির শুভেচ্ছায় স্লোগান

” উত্তর উত্তর”কেন! সবাই উত্তর সিটি কর্পোরেশনের বিভিন্ন ওয়ার্ডে নাগরিক। তারা নিজেরাই নগর পিতা হিসেবে জাহাঙ্গীর কবির নানককে দেখতে চান উত্তরে এমন দাবি।

 

তবে আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য পদে পদোন্নতি এবিং আকস্মিক প্রার্থী হিসেবে রাতারাতি নানকের নাম কেন ঘনিষ্ঠ সূত্রগুলো বলছে, সিটি কর্পোরেশনে ব্যবসায়ী আনিসুল হক নিহত হবার পর ব্যবসায়ী প্রতিনিধি থেকে আতিকুল ইসলামকে দেয়া হয় নগর পিতার চাবি। তবে এইবার ডিসিসিসি উত্তর ও দক্ষিণের মেয়র পদে দলীয় প্রার্থীকে নেতৃত্বের, ভার সম্মানের স্থান থেকে সুযোগ দেয়ার বিষয়ে অতি সম্প্রতি নিজস্ব চিন্তা শেখ হাসিনার। একদিকে সাংগঠনিক কর্মকান্ডে ঢাকা উত্তর দক্ষিণের রাজনৈতিক যোগাযোগ পুরোনো  নানকের। ২০০৮ এর সরকার ক্ষমতায় আসার পর টানা দুই দফা সংসদ সদস্য হিসেবে মোহাম্মদপুর সহ স্থানীয় তিনটি থানার নাগরিকদের খুটি নাটি হতে শুরু করে নগর সুবিধার  বিষ্ক্য বেশিরভাগই তিনি নিয়মিত ছিলেন৷ আওয়ামী লীগ শাসনামলে জাহাঙ্গীর কবির নানক সরকারের স্থানীয় সরকার প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন। ঘনিষ্ঠরা বিশেষ মহলে আলোচনাকে সম্ভাবনা থেকে মনে করছেন।  হঠাৎ মেয়র পদে ইউটার্ণ, হেভিওয়েট দলীয় নেতা এবং বছর জুড়ে শেখ হাসিনার আস্থায় থাকা জাহাঙ্গীর কবির নানক কেন? প্রতিমন্ত্রী থাকাকালীন। বছরেই একই আওয়ামী লীগের কাউন্সিল থেকে প্রথমে দলের সাংগঠনিক সম্পাদক কিছুদিনের মধ্যেই যুগ্ম সাধারণ সম্পাদকে পদোন্নতি হয় নানকের। আর স্থানীয় সরকার প্রতিনন্ত্রী হিসেবে সাধারণ মানুষের নাগরিক সুবিধার সবটাই ওয়াকিবহাল ছিলেন তিনি। কারণ সেসময় ডিসিসিতে নগর পিতার গদি শূণ্য

ছিল।

স্থানীয় সরকারের অধীনে মেয়র পদে নানকের নাম আলোচনায় হয়তো আওয়ামী লীগ সভাপতির সময়ের গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত  বলে বিশ্বাস দলীয় ঘনিষ্ঠতায় নিকটে যারা। আর দক্ষিণে বর্তমান মেয়র সাঈদ খোকন পুনরায় নৌকার টিকিট, নাকি হঠাৎ দুই পাশাপাশি আসনের এমপি হাজী সেলিম আর ব্যারিষ্টার শেখ ফজলে তাপস! নাকি দক্ষিণে শেখ হাসিনা হেভিওয়েট দলীয় নেতাক আনছেন ডিসিসি দক্ষিণের মেয়র প্রার্থীতায়।

ঢাকা সিটি কর্পোরেশন উত্তর এর মেয়র নিয়ে কথা বলতে নানকের ফোনে চেষ্টা করে সংযোগ বিচ্ছিন্ন পাওয়া যায়।

আপনার মতামত লিখুন :
error0



এই বিভাগের আরো খবর